1. coxsbazarekattorbd@gmail.com : Cox's Bazar Ekattor : Cox's Bazar Ekattor
  2. coxsekttornews@gmail.com : Balal Uddin : Balal Uddin
দ্রব্যমূল্য ২০১৯ ও ২০২৪: নতুন সরকার কি বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে - Cox's Bazar Ekattor | দৈনিক কক্সবাজার একাত্তর
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
জাহাজেই ঈদের নামাজ পড়লেন জিম্মি বাংলাদেশি নাবিকরা শাওয়ালের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে সাতক্ষীরায় ২৫ গ্রামে ঈদ উদযাপন পার্বত্য জেলায় অস্থিরতার কারণে ঈদ কেন্দ্রিক পর্যটনের চাপ কক্সবাজারে পেকুয়ায় ৭ করাতকলে প্রশাসনের অভিযান ঈদের পরদিন থেকে সেন্টমার্টিনে পর্যটকবাহী সব জাহাজ বন্ধ ঝিলংজার হাজিপাড়ায় সংঘবদ্ধ চোরের উপদ্রব।। আতংক চরমে কক্সবাজারে আইএমও কর্মকর্তা তুহিনের হামলায় ছাত্রসহ বৃদ্ধা মহিলা আহত! হোটেল থেকে নির্মাতা সোহানুর রহমানের মেয়ের মরদেহ উদ্ধার ‘সন্ত্রাসী ইসরাইলি হামলা বিশ্বের মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দিতে হবে’ -ড. সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী

দ্রব্যমূল্য ২০১৯ ও ২০২৪: নতুন সরকার কি বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে

  • আপলোড সময় : রবিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৩৫ জন দেখেছেন

২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি কেজি আলুর দাম ছিল ২৫ টাকার মধ্যে। এক বছর পর বাজারে এখন একই আলু বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকায়। দরটি দ্বিগুণের বেশি।

দেশে আলুর মতো বিভিন্ন নিত্যপণ্যের দাম এখন চড়া। মূল্যস্ফীতিও বেশি। এমন পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগ সরকারের টানা চতুর্থবারের মেয়াদ শুরু হয়েছে।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে; কিন্তু বছরের প্রথমে বাজারে বাড়তে শুরু করেছে চালসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম।

অর্থনীতিবিদ ও বাজার বিশ্লেষকেরা বলছেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে না। তার কারণ তিনটি। প্রথমত, উৎপাদন ও পরিবহন খরচ কমাতে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও ডিজেলের দাম কমানো দরকার। সরকারের পক্ষে সেটি কঠিন। দ্বিতীয়ত, আমদানি বাড়িয়ে বাজারে প্রতিযোগিতা বাড়ানো দরকার; কিন্তু মার্কিন ডলারের সংকটে ব্যবসায়ীরা সহজে ঋণপত্র (এলসি) খুলতে পারছেন না। ডলারের বাড়তি দামের কারণেও খরচ বেড়েছে। তৃতীয়ত, কিছু কিছু পণ্যে উচ্চ হারে শুল্ক-কর রয়েছে। সেখানেও ছাড় দেওয়া সরকারের পক্ষে সহজ নয়। কারণ, সরকার রাজস্ব ঘাটতিতে রয়েছে।

২০২২ সালের মে মাসের দিকে দেশে মার্কিন ডলারের দাম ছিল ৮৬ টাকার আশপাশে। এখন আমদানিতে নির্ধারিত দর ১১০ টাকা। যদিও ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানির ক্ষেত্রে ডলার কিনতে তাঁদের ১২৪ টাকাও লাগছে। ফলে এ সময়ে শুধু ডলারের দামের কারণে পণ্য আমদানির ব্যয় বেড়েছে ৪৪ শতাংশ। গম, ডাল, ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ, রসুন, আদা ও জিরার মতো নিত্যপণ্য এবং নিত্যব্যবহার্য পণ্যের কাঁচামাল আমদানির ব্যয় বাড়িয়ে দিয়েছে ডলারের দর।

বছরের শুরুতে কিছু কিছু পণ্যের দাম বাড়ছে। টিসিবির হিসাবে ঢাকা বাজারে ৮ জানুয়ারি থেকে ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত মোটা চাল, প্যাকেটজাত আটা, ময়দা, মসুর ও মুগ ডাল, পেঁয়াজ, রসুন, আদাসহ ৪ ধরনের মসলা ও ব্রয়লার মুরগি—এই ১৩টি পণ্যের দাম বেড়েছে। কোনো ক্ষেত্রে ২ টাকা, কোনো ক্ষেত্রে ৫০ টাকা। কমেছে আলু ও জিরার দাম।

নতুন সরকার বিশেষ কোনো উদ্যোগ না নিলে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে না বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদেরা। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর প্রথম আলোকে বলেন, দাম কমানো কখনোই সম্ভব হবে না। তবে মূল্যবৃদ্ধি, অর্থাৎ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। তাঁর মতে, সরবরাহ যেহেতু কম, সেহেতু ডলারের মূল্যবৃদ্ধির চেয়েও দেশে দর বেশি বেড়েছে। এতে বাড়তি মুনাফা করার সুযোগ পাচ্ছেন বড় ব্যবসায়ীরা। গম, ভোজ্যতেল, চিনিসহ বিভিন্ন পণ্যের ক্ষেত্রে এটা হচ্ছে।

আহসান মনসুর আরও বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের এখন একটিই কৌশল হতে পারে, সেটি হলো ব্যাংকঋণের সুদের হার বাড়িয়ে ১৬–১৭ শতাংশে নিয়ে যাওয়া। সঙ্গে সরকারের বাজেট ব্যয় এক লাখ কোটি টাকার মতো কমিয়ে ফেলতে হবে। এটা রাজনৈতিক সদিচ্ছার বিষয়।

শেয়ার করতে পারেন খবরটি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো বিভিন্ন খবর দেখুন

Sidebar Ads

ডাঃ কবীর উদ্দিন আহমদ

© All rights reserved © 2015 Dainik Cox's Bazar Ekattor
Theme Customized By MonsuR