1. coxsbazarekattorbd@gmail.com : Cox's Bazar Ekattor : Cox's Bazar Ekattor
  2. crander@stand.com : :
  3. coxsekttornews@gmail.com : Balal Uddin : Balal Uddin
দোয়া শুধু প্রয়োজনে নয়, এটা ইবাদতও - Cox's Bazar Ekattor | দৈনিক কক্সবাজার একাত্তর
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন

দোয়া শুধু প্রয়োজনে নয়, এটা ইবাদতও

  • আপলোড সময় : শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৮৮ জন দেখেছেন

অনলাইন ডেস্ক:

মুসলমানদের কাছে দোয়া শব্দটি ব্যাপক পরিচিত। মুসলমানরা চলতে ফিরতে একে অন্যের কাছে দোয়া প্রার্থনা করে।

সবাই সবাই সবার কাছে কোনো না কোনো উসিলায় দোয়া চান। আর বিপদ-আপদের সময় তো দোয়া আমাদের মুখে লেগেই থাকে। বস্তুত দোয়া শুধু প্রয়োজনে নয়, দোয়া একটি ইবাদত বিশেষ।

ইসলামের পরিভাষায়, দোয়া শব্দের আক্ষরিক অর্থ ‘আবাহন’ বা ‘ডাকা’, যা একটি পদ্ধতিসিদ্ধ মিনতি প্রক্রিয়া। অভিজ্ঞ আলেমরা বলেন, দোয়া একটি আমল ও স্বতন্ত্র ইবাদত। তাই দোয়ায় যার বিশ্বাস নেই, তার ঈমান নেই। এক হাদিসে রাসূলে কারিম (সা.) বলেন, ‘দোয়া করা হুবহু ইবাদত। অতপর তিনি কোরআনের এই আয়াত পেশ করেন, ‘তোমাদের পালনকর্তা বলেন, তোমরা আমার নিকট দোয়া কর, আমি তোমাদের দোয়া কবুল করবো। ’ -তিরমিজি, নাসাঈ ও ইবনে মাজা

দোয়া প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘তোমরা আমাকে ডাক, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দিবো। ’ হজরত নোমান বিন বশির থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘দোয়া হচ্ছে ইবাদত। ’ -আহমদ, আবু দাউদ, তিরমিজি ও ইবনে মাজা

এখানে সম্পর্কিত কয়েকটি হাদিস উল্লেখ করা হলো-

হজরত আবু সাঈদ (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কোনো মুসলমান যদি এমন দোয়া করে যাতে কোনো গুনাহ বা আত্মীয়তা ছিন্ন করার আহবান না থাকে, তাহলে আল্লাহপাক তাকে তিনটির যে কোনো একটি বিনিময় দান করেন- ১. হয় সাথে সাথে তার দোয়া কবুল করেন, ২. না হয় আখেরাতের জন্য সঞ্চিত রাখেন, ৩. এ পরিমাণ ক্ষতিকর কিছু থেকে তাকে হেফাজত করেন। তখন সাহাবারা (রা.) বলল, তাহলে আমরা বেশি বেশি দোয়া করবো। জবাবে রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহ সবচেয়ে অধিক দাতা। ’ -তিরমিজি

হজরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘দোয়া মুমিনের হাতিয়ার, দ্বীনের খুঁটি এবং আসমান ও জমিনের আলো। ’ -হাকেম

হজরত আবদুল্লাহ বিন ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে বিপদ নাজিল হয়েছে বা এখনো নাজিল হয়নি তার জন্য দোয়া উপকারী। হে আল্লাহর বান্দারা! তোমাদের দোয়া করা জরুরি। -হাকেম

হজরত আবদুল্লাহ বিন আমর বিন আস (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, সবচেয়ে দ্রুত যে দোয়া কবুল হয় তা হচ্ছে- কোনো ভাইয়ের অনুপস্থিতিতে তার জন্য দোয়া করা। ’ –আবু দাউদ ও তিরমিজি

অন্য এক হাদিসে হজরত আবু দারদা (রা.) থেকে বর্ণিত, হুজুর (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কোনো মুসলমান ভাইয়ের অনুপস্থিতিতে তার জন্য দোয়া করলে সে দোয়া কবুল হয়। তার মাথার কাছে নিয়োজিত ফেরেশতা আমিন বলেন এবং বলেন, তোমার জন্যও অনুরুপ হোক। ’ -মুসলিম

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তিন দোয়া বিনা পর্দায় কবুল হয় এতে কোনো সন্দেহ নেই- ১. মাতা-পিতার দোয়া, ২. মজলুমের (অত্যাচারিতের) দোয়া এবং ৩. মুসাফিরের দোয়া। -আবু দাউদ ও তিরমিজি

অন্য এক হাদিসে এসেছে, হুজুর (সা.) ইরশাদ করেন, ‘দোয়া কবুলের ব্যপারে তাড়াহুড়া করলে দোয়া কবুল হয় না। -মুসলিম ও তিরমিজি

অনেক সময় আল্লাহতায়ালা দোয়াকারীর বৃহত্তর স্বার্থে দোয়া কবুলে বিলম্ব করেন। আল্লাহতায়ালা যেহেতু সর্বজ্ঞানী, তিনি জানেন যে, তার বান্দা যে বিষয়ে দোয়া করেছে তিনি তাকে বৃহত্তম আরেকটি লক্ষ্য অর্জনের জন্য তা কবুল না করে পিছিয়ে দেন। হতে পারে, বান্দা তখন দোয়া নাও করতে পারে অথবা বৃহত্তম স্বার্থের কথা তার চিন্তা চেতনায় আসে নাই, কিংবা পরকালে বৃহত্তর বিপদে রক্ষা করা ও মুক্তির জন্য তার ওই দোয়াকে দুনিয়ার জন্য কবুল করা হয় না। এর পরিবর্তে পরকালে তাকে উত্তম বিনিময় প্রদান করা হবে। এ সব কারণে আল্লাহতায়ালা কোনে কোনো সময় দোয়া বিলম্বে কবুল করেন। এ জন্য দোয়াকারীর নিরাশ না হওয়া চাই।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলে কারিম (সা.) বলেন, ‘পাঁচ ব্যক্তির দোয়া বিশেষভাবে কবুল করা হয়- ১. মজলুমের দোয়া যতক্ষণ সে প্রতিশোধ না নেয়, ২. হজ পালনকারীর দোয়া যতক্ষণ সে ঘরে ফিরে না আসে, ৩. আল্লাহর পথে জিহাদকারীর দোয়া যতক্ষণ সে শহীদ না হয়, ৪. রুগ্ন ব্যক্তির দোয়া যতক্ষণ সে আরোগ্য লাভ না করে এবং ৫. ভাইয়ের আনুপস্থিতিতে তার জন্য ভাইয়ের দোয়া। অতপর হুজুর (সা.) বলেন, এগুলোর মধ্যে শেষের দোয়াটি অবশ্যই কবুল হয়। ’ -বায়হাকি

আরেক হাদিসে রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আল্লাহর কাছে দোয়ার চেয়ে বেশি সম্মানিত জিনিস আর কিছু নেই। -তিরমিজি ও ইবনে মাজা

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহ বলেন, আমি ঠিক সেই রকম, যে রকম বান্দা আমার ব্যপারে ধারণা করে। যখন সে আমার কাছে দোয়া করে, তখন আমি তার সাথে থাকি। -বোখারি ও মুসলিম

হজরত সালমান (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আল্লাহ চিরঞ্জীব ও সম্মানিত, কোনো বান্দা তার কাছে দু’হাত তুললে, তিনি খালি হাতে তাকে ফেরত দিতে লজ্জাবোধ করেন। -তিরমিজি ও আবু দাউদ

হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমাদের প্রত্যেকেই যেন আল্লাহর কাছে নিজ প্রয়োজন পূরণের জন্য দোয়া করে। এমনকি জুতার ফিতা ছিঁড়ে গেলেও আল্লাহর কাছে দোয়া করবে। -তিরমিজি

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) ইরশাদ করেন, যে আল্লাহর নিকট কিছু চায় না আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তার ওপর রাগ করেন। -তিরমিজি

শেয়ার করতে পারেন খবরটি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো বিভিন্ন খবর দেখুন

Sidebar Ads

ডাঃ কবীর উদ্দিন আহমদ

© All rights reserved © 2015 Dainik Cox's Bazar Ekattor
Theme Customized By MonsuR