সংবাদ শিরোনাম :
পেকুয়ায় ডাম্পার-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-২, আহত-৪ সৈকতে শতাধিক প্রতীমা বিসর্জন আসছে মাদক, ফিরছে কারবারীরা! ডাকাত সর্দার নজরুল বাহিনীর অবৈধ অস্ত্রের মুখে নাপিতখালী ভিলেজার পাড়ার বদি আলমের বাড়িতে ডাকাতি, থানায় এজাহার দায়ের জেলার আইনশৃংখলার উন্নয়নে পুলিশের পাশাপাশি সাংবাদিকদেরও এগিয়ে আসার আহবান ইয়াবায় আন্ডার মেট্টিক ডেন্টাল চিকিৎসক গফুরের আলিশান জীবন করোনামুক্ত হলেন রামুর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবু বক্কর টানা ভারী বর্ষণে তলিয়ে গেছে পর্যটন শহর-চরম দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ মানবতার বিপরিতে ভয়ংকর হয়ে উঠেছে রোহিঙ্গারা! হুমকির মুখে সেন্টমার্টিন দ্বীপের জীববৈচিত্র্য
চট্টগ্রামে আইসোলেশন না মানায় করোনা সংক্রমণ উর্ধমুখী

চট্টগ্রামে আইসোলেশন না মানায় করোনা সংক্রমণ উর্ধমুখী

ডেস্ক নিউজ:

করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা তুলনামূলক হারে কমে আসলেও সংক্রমণের হার কমছে না কিছুতেই। বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে মানুষের মধ্যে করোনার ভীতিও নেই বললে চলে। তবে মানুষ স্বাস্থ্যবিধিকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না। অপরদিকে শনাক্তরা আইসোলেশন না মানায় সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণ হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষ এখন বাসাবাড়ি থেকে অহেতুক বের হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধির বিষয়েও উদাসীন। সরকারের উচিত স্বাস্থ্যবিধি ও আইসোলেশন নিশ্চিতে তদারকি বাড়ানো।

চট্টগ্রাম মহানগরীতে সংক্রমণ হার বাড়ছেই। চট্টগ্রামের ৬টি ল্যাব, সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া উপজেলার কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে ৮১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে নতুন করে আরোimage৮৯ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৬ হাজার ৩০৪ জন। করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরো ২ জন। করোনামুক্ত হয়েছেন আরো ৫৮ জন।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘মানুষের মধ্য থেকে করোনা ভীতি কেটে গেছে। তারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। অনেক ক্ষেত্রে করোনা পজিটিভরা ভ্রমণ করছেন। বাসাবাড়িতে আইসোলেশন মানছেন না। বিশেষ করে উপসর্গহীন রোগীদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি। ফলে তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি ও অন্যদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যে, গত ৩ এপ্রিল চট্টগ্রাম নগরীর দামপাড়ায় প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এরপর পুরো এপ্রিলে আক্রান্ত দাঁড়ায় ৭২ জন। কিন্তু জুন থেকে বাড়তে থাকে শনাক্ত। জুনের শেষে আক্রান্ত ঠেকে ৮ হাজার ৮৫২ জনে। জুলাইতে আরও ৫ হাজার ৬০০ জন এবং চলতি মাসের ১৮ দিনে ১ হাজার ৬৬৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত ২৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে নগরীর ১৭৫ ও বিভিন্ন উপজেলার রয়েছে ৭৮ জন।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রব বলেন, ‘করোনা পজিটিভ রোগীদের আইসোলেশন মেনে চলতে হবে। আর এখন যদি স্বাস্থ্যবিধি না মেনে লোকজন ঘোরাফেরা করে, তাহলে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। কারণ এখনো সংক্রমণ কমে যায়নি। উল্টো বিভিন্ন দেশে দ্বিতীয় দফা সংক্রমণ দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘মানুষ এখন বাসাবাড়ি থেকে অহেতুক বের হচ্ছেন। স্বাস্থ্যবিধির বিষয়েও উদাসীন। এখন অফিস-আদালত খোলা, এজন্য নিজে বাঁচতে ও পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে আগের চেয়ে বেশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাফেরা করতে হবে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে সুস্থ হয়েছেন ৬২ জন। এই সময়ে নগরী ও জেলায় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪৫,০৪৫,৬৮০
সুস্থ
৩২,৮৫৪,১৪২
মৃত্যু
১,১৮২,৭২৮
সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
২,৯৪৯
৩৭
২,৮৬২
১৩,৪৮৮
সর্বমোট
১৭৮,৪৪৩
২,২৭৫
৮৬,৪০৬
৯০৪,৫৮৪

একাত্তর পত্রিকার প্রতিনিধি সভা

dainikcoxsbazarekattor.com © All rights reserved