সংবাদ শিরোনাম :
কক্সবাজারে পিকআপের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত আতঙ্কে বুবলি, গাড়ি চাপা দিয়ে মারার চেষ্টা নায়িকাকে বায়তুশ শরফ জামে মসজিদের খতিব মাওলানা তাহেরুল ইসলামের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল তিনদিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হেরে গেলেন কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহমদ বাবু অপরাধীদের কাছে জিম্মি বিসিক এলাকার সাধারণ মানুষ দৈনিক কক্সবাজার ৭১ পত্রিকা অফিস পরিদর্শনে কক্সবাজার জেলা ছাত্রদল হ্নীলায় ৩ ফার্মেসী ও ২ প্যাথলজি সেন্টারে ৮ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ও ঔষধ জব্দ রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আসছে ইজিবাইক অটোরিকশা মাহবুবের উপর হামলার ইন্ধনদাতাদের সমুচিত জবাব দেয়া হবে-মেয়র মুজিবুর রহমান চৌফলদন্ডীর অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নোমানিয়া মাদ্রাসার ৪৭ তম বার্ষিক সভায় প্রধান অতিথি বেলাল উদ্দিন বেলাল
ডিসি কামাল হোসেনের রাজকীয় বিদায়

ডিসি কামাল হোসেনের রাজকীয় বিদায়

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

‘কথায় আছে শেষ ভালো যার, সব ভালো তার।’ এই কথাটার যথার্থ মিল পাওয়া গেলো কক্সবাজারের সদ্য সাবেক জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের বিদায়ে। ‘রাজকীয়ভাবে’ কামাল হোসেনকে বিদায় দিয়েছে কক্সবাজারের মানুষ। বিদায় বেলায় মানুষের ভালোবাসায় আরও বেশি ঋণী হয়ে গেলেন কক্সবাজারের প্রতি। তাই যেখানেই থাকেন না, কক্সবাজার হৃদয়ে গেঁথে থাকবে বলে জানান কামাল হোসেন।

বুধবার (৬ জানুয়ারী) সকালে শুরুতে অরুণোদয় স্কুলে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। এরপর শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য দেন। পরে শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে বাগান উদ্বোধন করেন তিনি। এসময় সঙ্গে ছিলেন কক্সবাজারের সদ্য যোগদানকৃত জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ।
পরে সকাল ১১টা ২০ মিনিটের দিকে বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নেন মো. মামুনুর রশিদ। দায়িত্ব গ্রহনকালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ডিডিএলজি (উপসচিব) শ্রাবস্তি রায়, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. শাজাহান আলি, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আমিন আল পারভেজ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাহিদ ইকবাল, সহকারী কমিশনারবৃন্দ সহ উর্ধব্তন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে নতুন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ জেলা কোষাগারের দায়িত্ব বুঝে নেন এবং সেখানে উভয় জেলা প্রশাসক আনুষ্ঠানিকভাবে সালামী গ্রহণ করেন। দায়িত্ব হস্তান্তর শেষে গাড়িবহরযোগে কক্সবাজার বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন মো. কামাল হোসেন। বিমানবন্দরে প্রিয় জেলা প্রশাসককে বিদায় জানাতে সকাল থেকেই উপস্থিত হয় হাজারো মানুষ। গেইট থেকে যাত্রী টার্মিনাল পর্যন্ত ফুলে ফুলে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিদায় জানানো হয় সদ্য সাবেক জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনকে।
বিমানবন্দরে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান সহ পৌর পরিষদ, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক সহ সর্বস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
বিদায় বেলায় স্মরণ করতে ভুলে যাননি কক্সবাজারের মানুষের আন্তরিকতা আর সহযোগিতার কথা। যেখানেই থাকেন কক্সবাজার এবং এখানকার মানুষের স্মৃতি হৃদয়ে গেঁথে থাকবে বলে জানান মো. কামাল হোসেন।
জেলা প্রশাসক কামাল হোসেনের বদলীর খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বিভিন্ন সংগঠন, প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তিসহ অগণিত মানুষ জেলা প্রশাসককে বিদায় সংবর্ধনা দেয়। দায়িত্বের শেষ কয়েকদিনে জনগণ প্রমাণ করে দিয়েছে কক্সবাজারের মানুষ তাকে কতটা ভালবাসে। বিদায়ের দিনেও সকাল থেকে শহীদ মিনার, ডিসি অফিস চত্বর ও বিমানবন্দরে ভীড় জমতে থাকে হাজারো মানুষের। এই ভালোবাসার প্রতিউত্তরে জেলা প্রশাসক বলেছেন, ‘ভালোবাসা পেতে কার না ভালো লাগে। সব সময় চেষ্টা করেছি মানুষের মঙ্গলের জন্য কাজ করতে। কতটুকু পেরেছি সেটা জানিনা, তবে চেষ্টা করেছি সর্বোচ্চটা দিয়ে কাজ করতে।’
বিমানবন্দরে উৎসুক জনতাকে হাত উচিয়ে বিদায় জানিয়ে স্বপরিবারে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন জনপ্রিয় জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।
প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান অরুণোদয়, ডিসি কলেজ, শিশুপার্ক, শিশু হাসপাতাল সহ অসংখ্য মানবিক ও সৃস্টিশীল কাজের কারণে ডিসি কামাল হোসেনকে আজীবন মনে রাখবে কক্সবাজারবাসী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

একাত্তর পত্রিকার প্রতিনিধি সভা

x